বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

বিয়ের ৭০ দিনের মধ্যে সন্তান প্রসব, সন্তানের আসল পিতার কথা জানালেন নববধূ

বিয়ে হয়েছিল আজ থেকে তিন মাস আগে। সংসারও চলছিল ভালোই। সুখের সংসারে মাত্র তিন মাস পরেই নববধূর কোলজুড়ে আসে ফুটফুটে পুত্র সন্তান।

কিন্তু এই তিন মাসের ব্যবধানে সন্তান প্রসব কিভাবে সম্ভব? এমন রহস্যজনক প্রশ্ন ঘুরছে চুয়াডাঙ্গার ভিমরুল্লা এলাকা থেকে পুরো শহরে।

ঘটনা এখানেই শেষ নয় ওই তরুণী হাসপাতালে আসলে বিষয়টি আরো জানাজানি হতে থাকে।একপর্যায়ে হাসপাতালের বেডেই কাতরানো তরুণীর হাতে পৌঁছায় ডিভোর্সের চিঠি।

জানা যায়, মাস তিনেক আগে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার কয়রাডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল হালিমের মেয়ে সোনালী আক্তারের (১৮) সাথে চুয়াডাঙ্গা শহরের

ভিমরুল্লা গ্রামের আব্দুল আলীমের ছেলে মুস্তাকিন (২০) পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর থেকেই তারা বেশ ফুরফুরে মেজাজে সংসার করে আসছিল। দাম্পত্য জীবনেও ছিলনা ক’লহ। তাদের সেই সুখের সংসারে বাঁ’ধ সাধে একটি পুত্র সন্তান।

গতপরশু শনিবার রাত ১২ টার দিকে শশুর বাড়িতে অবস্থানকালে বাথরুমের ভিতরেই একটি পূত্র সন্তানের জন্ম দেয় নববধূ সোনালী। পরে তার শশুড় বাড়ীর লোকজন প্রাথমিকভাবে বিষয়টি বুঝতে পেরে সোনালীর পরিবারকে জানায়। সে রাতেই সোনালীর পরিবারের সদস্যরা তাকে উ’দ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। নবজাতক ও মা দুজনই হাসপাতালে ভর্তি হলে গতকাল রোববার বিষয়টি আরো জানাজানি হয়।

নববধূর সন্তান প্রসবের খবর দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে শহরের আনাচে কানাচে। এ ঘটনাকে ঘিরে সৃষ্টি হয় নানা আলোচনা-সমালোচনার। এদিকে এ ঘটনার পরই হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় সোনালী খাতুনকে গতকাল রবিবার দুপুরে তালাকনামা পাঠায় স্বামী মুস্তাকিন।

নববধূ সোনালীর বাবা আব্দুল হালিমের অ’ভিযোগ, স্বামী মুস্তাকিনের পরিবারের লোকজন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ডেকে এনে তাদেরকে নানা ধরনের হু’মকি ধা’মকি প্রদান করে। একপর্যায়ে তা’লাকনামা নিয়ে এসেও তার মেয়ের কাছ থেকে জো’ড়পূর্বক স্বাক্ষর করিয়ে নেয়।

নববধূ সোনালী জানান, কয়রাডাঙ্গা গ্রামের জনৈক এক যুবকের সাথে দীর্ঘদিন ধরে তার প্রে’মের সম্পর্ক ছিল। বিয়ের আগে থেকেই ওই যুবকের সাথে তার ঘ’নিষ্ঠতাও ছিল। স্বামী মুস্তাকিনের বড়ভাই আশরাফুল ইসলাম আলামিন বলেন, ‘জন্ম দেয়া সন্তান আমার ভাইয়ের নয়। আমরা কেন ওই সন্তানের তার দায়ভার নিব। তাই আমরা বা’ধ্য হয়ে তালাকনামা পাঠিয়েছি।’ তবে এ ব্যাপারে কোন পক্ষ এখনো আইনের দারস্ত হয়নি বলে জানা গেছে।


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।