রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:১১ অপরাহ্ন

এক মন্ত্রী বলছে স্বস্তিদায়ক অন্য মন্ত্রী ভোগান্তি – রিজভী

ঢাকা: ‘এবারের ঈদযাত্রায় সীমাহীন দুর্ভোগকে এক মন্ত্রী বলছে স্বস্তিদায়ক তো অন্য মন্ত্রী বলছে ভোগান্তি ‘ এই বলে মন্তব্য বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রহুল কবির রিজভী বলেছেন, কাল ছিল ত্যাগের মহিমায় উৎকীর্ন কোরবানীর ঈদ, পবিত্র ঈদুল আজহা। সরকারের দায়বদ্ধহীনতার কারণে দেশের মানুষের ঈদ কেটেছে নিরানন্দে।

আজ এক প্রেস ব্রিফিং এ এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী এইসব কথা বলেন।

তিনি বলেন একদিকে ঈদযাত্রায় সীমাহীন পথের দুর্ভোগ, সারাদেশে ডেঙ্গু মহামারি এবং দেশের বৃহৎ অঞ্চলজুড়ে ত্রান বঞ্চিত বন্যার্ত মানুষের হাহাকার অন্যদিকে গ্রামিন জনপদে সরকারী দলের ক্যাডারদের অত্যাচার সব আনন্দ ম্লান করে দিয়েছে। তারপরও মিডনাইট সরকারের কতিপয় মন্ত্রী এই ঈদযাত্রায় মানুষের চরম কস্ট ক্লান্তি -মহাদুর্ভোগ নিয়ে রীতিমত কদর্য ঊপহাস করেছে।

রিজভী বলেন, তিন দিন আগে যখন মহাসড়কে প্রায় শত কিলোমিটারের দীর্ঘ যানজট আর ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ে পড়ে মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা কস্ট করেছেন তখন ওবায়দুল কাদের সাহেবকে আমরা বলতে শুনেছি -“বাংলাদেশের মানুষ ঈদযাত্রার দুর্ভোগকে দুর্ভোগ হিসেবে মনে করে না। এটা তারা ঈদ আনন্দের অংশ হিসেবে মনে করে’। “ঈদের আনন্দে মানুষ ডেঙ্গু ভুলে গেছে’।”

কতটা স্বাভাবিক বোধ-বুদ্ধি শূন্য হলে একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী এমন উপহাসমুলক অবান্তর কথা বলতে পারেন! তারা মানুষকে মানুষ মনে করেন না, মনে করেন তাদের কেনা ক্রীতদাস। কারন জনগনের ভোটেতো আর তারা নির্বাচিত হননি!

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব যখন দুর্ভোগকে স্বস্তিদায়ক আর আনন্দ যাত্রা বলছেন তখন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম রবিবার ফেসবুক পোস্টে তুলে ধরেছেন ঈদে তার বাড়ী ফেরার চরম ভোগান্তির কথা। রবিবার সন্ধ্যায় এক ফেসবুক পোস্টে শাহরিয়ার আলম লেখেন, ‘আমার ট্রেন ১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো। সিডিউলে থাকা অনেক প্রোগ্রাম মিস করলাম। দুইদিন ধরে টিভিতে দেখলাম মানুষের ভোগান্তি, এগুলো আমাকে অনেক ভাবিয়েছে। আজকে নিজের চোখেও দেখলাম’। সুতরাং সেতুমন্ত্রী কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে মানুষের চোখকে বিভ্রান্ত করার ব্যর্থ চেষ্টা করেন কিন্তু ভুক্তভোগি মানুষ হাড়ে-হাড়ে টের পেয়েছে সড়ক, নৌ ও রেল পথে ঘরে ফেরার যন্ত্রনা। আমরা মিডিয়ায় দেখেছি: ঢাকা থেকে খুলনা যেতে ৩৬ ঘন্টা সময় লেগেছে। কুষ্টিয়া যেতে সময় লেগেছে ২৭ ঘন্টা। ঢাকা থেকে পাবনা পৌছাতে সময় লেগেছে ২২ ঘন্টা। রাত-দিন পার করেছে মানুষ রাস্তায়।

গরুর চামড়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কুরবানির পশুর চামড়ার টাকা গরীব, মিসকিন, ইয়াতিমদের হক। এই চামড়া বিক্রির টাকা তাদের মাঝেই বিতরণ করার নিয়ম। এটা তাদের ঈদের আনন্দের একটা উৎস। বিএনপি সরকারের সময়ে এদেশে যে চামড়া কয়েক হাজার টাকায় বিক্রি হতো এখন তা বিক্রি হচ্ছে ২/৩ শ’ টাকায়। ৮০ হাজার টাকা দামের গরুর চামড়ার দাম এখন ২২০ টাকা!!এক লাখ টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ২২৫ টাকায়। সব জিনিসের দাম হু হু করে বাড়লেও দফায় দফায় কমতে কমতে দশ ভাগের এক ভাগে নেমেছে গরীব-মিসকিনের হক এই কাঁচা চামড়ার দাম। এমন করুণ অবস্থা দেখে, নীরব প্রতিবাদ হিসাবে সিন্ডিকেটের কাছে বিক্রি না করে কোরবানির চামড়া মাটির নিচে পুঁতে রাখছেন অনেকে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমার অজুহাতে অনির্বাচিত আওয়ামীলীগের সিন্ডিকেট চামড়া নিয়ে এ কারসাজি করছে বেশ কয়েক বছর ধরে। এই চক্রের স্বার্থ রক্ষা করছে নিশুতি সরকার।

তিনি আরো বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চামড়ার বর্গফুট প্রতি একটা হাস্যকর দাম বেধে দিয়ে তাদেরকে সহায়তা করছে। এই অল্প দামের কারণে চামড়া ব্যাপকভাবে পাচার হচ্ছে পার্শবর্তী। সিন্ডিকেট করে এতিমের হক মারার এ কান্ডকারখানা যারা চালাচ্ছে বছরের পর বছর ধরে তারাও নিজেদের ধার্মিক বলে প্রচার করে। এদের হোতা সরকারী দলের এক বড় নেতা। যেভাবে পাট শিল্প ধ্বংস করা হয়েছে ঠিক সেই পথেই ধ্বংস করা হচ্ছে বাংলাদেশের ট্যনারি শিল্প। প্রশ্ন করবার কেউ নাই। জবাব দেয়ার কেউ নাই। সুইস ব্যাংকে আর কত টাকা পাঠানো সম্পন্ন হলে বাংলাদেশের জনগণ মুক্তি পাবে! আজ সুষ্ঠু নির্বাচনকে দূরে ঠেলে জনগনের সরকার নেই বলেই এভাবে জনগনের সর্বনাশ করা হচ্ছে।

স্বদেশ টুয়েন্টিফোর //আরসি /এবিএম


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।