সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

তোমাদের এত তাড়া কিসের ?

চট্টগ্রাম : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেছেন, ‘আমি টিউশনি করে লেখাপড়া করেছি, ছাত্রলীগ করেছি। সেখান থেকে অর্থমন্ত্রী হয়েছি। তোমাদের এত তাড়া কিসের ? তোমরা যারা পার্টির নাম ব্যবহার করছো তোমরা জয়ী হবে না। এখন যে অভিযান চলছে তাতে জয়ী হবেন প্রধানমন্ত্রী।’

আজ বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর এলজিইডি অডিটোরিয়াম মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আতাউর রহমান খান কায়সারের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ যৌথভাবে এই সভার আয়োজন করে।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তাফা কামাল বলেছেন, ‘ জাতির পিতার স্বপ্ন, অর্থনৈতিক মুক্তির কাজটি করার জন্য আমরা বেঁচে আছি। আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। প্রধানমন্ত্রী অনুপ্রাণিত করছেন আমাদের।’

তিনি বলেন, অস্থিরতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। মিচম্যাচ- যেটা হওয়ার কথা ছিল না। আমি বিশ্বাস করি, এখন যা ঘটছে তা কেটে যাবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ আমার মন খারাপ। চট্টগ্রামে আমি অনেক প্রকল্প দিয়েছি। কিন্তু বাস্তবায়ন হয়নি। আমিও চট্টগ্রাম বিভাগেরই মানুষ। চট্টগ্রামে লেখাপড়া করেছি। তাই চট্টগ্রামকে নিয়ে আমার সুন্দর পরিকল্পনা আছে।’

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নইমউদ্দিন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন বাচ্চু, উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, যুগ্ম সম্পাদক বদিউল আলম, দক্ষিণ জেলা সহ-সভাপতি মো. ইদ্রিস, উত্তর জেলা যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রমুুখ। পরিবারের পক্ষে বক্তব্য রাখেন নারী সংসদ সদস্য ওয়াসিকা আয়েশা খান।

আতাউর রহমান কায়সারকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কায়সার ভাইয়েরা ক্ষণজন্মা পুরুষ। তারা মানুষের কল্যাণে জীবন উৎসর্গ করেছেন। তিনি কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত ছিলেন। ষাটের দশকে কোরিয়ার অবস্থা আমাদের চেয়ে খারাপ ছিল। দ্বিতীয় বি্শ্বযুদ্ধের পর কোরিয়া ভাগ হয়। তাদের ঘরে খাবার ছিল না। স্কুল ছিল না। তাদের মায়েরা মাথার সোনালি চুল বেচে সন্তানকে স্কুলে পাঠাতেন। ৩০ বছরে অর্থনীতিতে সমৃদ্ধ হয়েছে সেই দেশ।’

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রামের মানুষ কায়সার ভাইকে এখনো ভালোবাসেন। আমি তার মতো হতে পারবো না। আমি চট্টগ্রাম কমার্স কলেজের ছাত্র ছিলাম। ছাত্রলীগ করতাম। আমি এখনো মনে করি আমি আওয়ামী লীগ নয় ছাত্রলীগ করি। সিটি কলেজ ও কমার্স কলেজের ছাত্র সংসদে আমরা জিততাম।’

চট্টগ্রামে নানা আয়োজনে পালন করা হয়েছে আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আতাউর রহমান খান কায়সারের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী। দিনটি উপলক্ষে গতকাল বুধবার পরিবারের উদ্যোগে দিনব্যাপী কর্মসূচির পাশাপাশি দলীয়ভাবেও নানা আয়োজন করা হয়।

সকালে নগরীর চন্দনপুরা বংশাল বাড়িতে মরহুমের  কবরে বিভিন্ন সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। ২০১০ সালের ৯ অক্টোবর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

স্বদেশ টুয়েন্টিফোর//একে/আরএম


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।