বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ০৫:০৩ অপরাহ্ন

রীতিমত তারকা বনে গেছেন আরুক মুন্সী

গোপালগঞ্জ: সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ায় রীতিমত তারকা বনে গেছেন প্রায় বঙ্গবন্ধুর মতো দেখতে আরুক মুন্সী। তিনি যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই মানুষ ভীড় করছেন তাকে এক পলক দেখার জন্য। তাকে জড়িয়ে অনেকেই ফ্রেমবন্ধী হচ্ছেন। কেউ কেউ আবার তাকে বাসায় দাওয়াত দিচ্ছেন। অনেকেই তার খোঁজ খবর নিচ্ছেন, দিচ্ছেন উপ ঢৌকন। ইতোমধ্যে তিনি সরকারের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সাথে সাক্ষাত করেছেন। তারা তার সাথে কুশল বিনিময় করেছেন ও খোঁজ-খবরও নিয়েছেন।

আজ শনিবার (৬ জুন) দুপুরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে বঙ্গবন্ধু ও পরিবারের নিহত সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন। এসময় তার সাথে তার সহধর্মীনি ও মেয়ে ছিলেন।

টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ আহম্মদ হোসেন মির্জা বলেছেন, আরুক মুন্সীকে দেখতে অনেকটা বঙ্গবন্ধুর মতো। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চেতনা নিয়ে সাধারন মানুষের পাশে থাকবেন আরুক মুন্সী এমনটি প্রত্যাশা করেন তিনি।

আরুক মুন্সী বলেন, বঙ্গবন্ধুর বেশ ভুষায় চলতে ভালই লাগে। স্ত্রী, এক মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে তিনি আজ বঙ্গবন্ধুর সমাধীতে আসেন। পরে টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ আহম্মদ হোসেন মির্জাকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধী সৌধের বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। এসময় বঙ্গবন্ধুর মাজারে আসা দর্শনার্থীরা তাকে কাছে পেয়ে এক নজর দেখার জন্য ভীড় করেন। অনেকেই তাকে নিয়ে সেলফি তুলেন।

আরুক মুন্সী আরো বলেন, অনেকে মনে করেন আমাকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো দেখা যায়। কিন্তু আমার কাছে কখনো মনে হয় না আমাকে বঙ্গবন্ধুর মতো দেখা যায়। তিনি একজন বঙ্গবন্ধুর সৈনিক, যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করে যাবেন বলে তিনি জানান।

তিনি অশ্রুসিক্ত নয়নে বলেন, তিনি একজন দুই পয়সার সামান্য কর্মচারী, অশিক্ষিত মানুষ। অনেকেই বলে তাকে বঙ্গবন্ধুর মতো দেখতে লাগে। যদিও তিনি নিজেকে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তুলনা করতে চান না। তিনি মনে করেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় আর কোন বঙ্গবন্ধু জন্মাবে না। আরুক মুন্সী স্বপ্ন দেখেন-বিশ্বাস করেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে।

অনেকেই আরুক মন্সিকে বঙ্গবন্ধুর মতো দেখতে মনে করলেও এটা নিয়ে অনেকের মধ্যে ভিন্ন মত রয়েছে। তারা বলেছেন, পোশাক-পরিচ্ছদ ও হেয়ার কাটিং বঙ্গবন্ধুর বেশ ধারণ করার চেষ্টা করেছেন তিনি। আসলে বঙ্গবন্ধুর সাথে আরুক মুন্সির চেহারা বা আকার আকৃতিতে কোন মিল নেই। তাদের ধারণা কোন বাড়তি সুযোগ-সুবিধার জন্য তিনি দীর্ঘ বছর পরে বঙ্গবন্ধুর বেশ ধারণ করেছেন।

আরুক মুন্সী ১৯৬৯ সালের ৬ জুলাই গোপালগেঞ্জর কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত কামারোল গ্রামে মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন । ৩ ছেলে মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে বসবাস করেন ঢাকার হাতিরপুল পাওয়ার হাউজ এলাকায়। ১৯৯৩ সাল থেকে গাড়ি চালক পদে চাকরি করেন ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানীতে(ডিপিডিসি)। ৮ম শ্রেনী পাশ বলে চাকরিতে পদোন্নতি পাননি তিনি। তবে, বঙ্গবন্ধুর চেহারার সঙ্গে তার চেহারার কিছুটা মিল থাকায় তিনি যেখানেই যান, সবখানে মানুষের ভালবাসা পান। বঙ্গবন্ধু ভক্তদের আগ্রহ থাকে তাকে ঘিরে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তাকে দেখতে ছুটে আসেন বঙ্গবন্ধু ভক্ত বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ।

স্বদেশ টুয়েন্টিফোর//আরসি/আরএম


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।