রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন

জেসিন্ডা আর্ডেন দৃঢ়চেতা এক মানবিক নেত্রী

বাংলাদেশ তো বটে – পুরো দুনিয়ার মানুষের কাছে ভীষণ পরিচিত একটি নাম ‘‘ জেসিন্ডা আর্ডেন ’’। শান্তিপ্রিয় মানুষের দেশ নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। সাম্প্রতিক সময়ে একটি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় তাঁর মানবিক অথচ দৃঢ় নেতৃত্ব জেসিন্ডার পরিচিতিতে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে। মানুষের শ্রদ্ধা আর সমীহ – দু’ই বেড়েছে তাঁর প্রতি।

গত ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের দু’টি মসজিদে শুক্রবার পবিত্র জুমার নামাজের সময় অস্ট্রেলিয়ার এক নাগরিকের সন্ত্রাসী হামলার কথা এখন আর কারো কাছে অজানা বিষয় নয়। সেদিনের নৃশংস হত্যাকাণ্ডে ৫০ জন মুসলিম নাগরিক নিহতের ঘটনা নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে কতোবড় আঘাত তা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিশ্বের মানুষের সাথে সাথে নিউজিল্যান্ডবাসীর কাছে যেন দুঃস্বপ্নে গ্রাস করা একটি কালোদিন। কারণ বিশ্বের সবচে শান্তিপ্রিয় মানুষের বসবাসের অন্যতম হচ্ছে এই দেশটি।

লোক সংখ্যাও তুলনামূলক অনেক কম। মাত্র ৫০ লক্ষ মানুষের বসবাস সেখানে। এরমধ্যে ইসলাম ধর্ম অনুসারীদের সংখ্যা মাত্র এক শতাংশ। তবুও শান্তির দেশটিতে অশান্তির এই ঘটনাটি নিউজিল্যান্ডবাসীকে গভীর শোকের পাশাপাশি চরম বিস্ময়ে হতবাক করে দিয়েছে। এই অবস্থার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন যেন নতুন রূপে আবির্ভূত হলেন। মানবিকতার সমস্ত গুণ নিয়ে অত্যন্ত দৃঢ়ভাবে তিনি পরিস্থিতি মোকাবেলা করলেন।
পুরো দুনিয়ার মানুষকে দেখিয়ে দিলেন, চরম বিপদে নিউজিল্যান্ডবাসী এক । ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের জন্য সমান তাঁর দেশ । শোকের কালো কাপড় মাথায় মুসলিম রীতি অনুযায়ি হিজাব পড়ে স্বজনহারা মানুষের পাশে এসে দাঁড়ালেন। তাদের অভয়বাণী শোনালেন — সমস্ত নিউজিল্যান্ড তাদের { মুসলিম } পাশে আছে। বিশেষ করে ক্ষতিগ্রস্ত মুসলিম সম্প্রদায় যেন নতুন করে আশা আর সাহসের বারতা শুনলেন প্রধানমন্ত্রীর কথা আর কার্যক্রমে ।

যেখানে বিশ্ব মোড়লখ্যাত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিভিন্ন সময়ে মুসলমানদের নিয়ে বিদ্বেষ আর উস্কানিমূলক বক্তব্য রেখে যাচ্ছেন, সেখানে জেসিন্ডা আর্ডেন যেন সত্যিই ব্যাতিক্রমী এক নেত্রী ।বলা বাহুল্য, ক্রাইস্টচার্চে আল নুর মসজিদসহ অন্য একটি মসজিদে হামলার মূলহোতা অস্ট্রেলিয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারেন্ট পরবর্তীতে স্বীকার করেছে – সে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উগ্র মতবাদের অনুসারী। অর্থাৎ সাম্প্রতিক সময়ে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের বক্তব্যগুলো তাকে অনুপ্রাণিত করেছে।

নৃশংস এই হত্যাযজ্ঞের মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় পরিস্থিতি সামলে নিলেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা। পরবর্তী শুক্রবার জুমার নামাজের প্রাক্কালে আল নুর মসজিদের কাছে হ্যাগলি পার্কে রাস্ট্রিয়ভাবে আয়োজন করেন নিহতদের স্মরণসভা । কালো পোশাক পরিহিত প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক শোকার্তদের পাশে দাঁড়ালেন, সমব্যথী হলেন।বিশাল মানুষের উপস্থিতিতে ইসলাম অনুসারীদের প্রতি অভয়বাণী  পুনর্চ্চারণ  করলেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা । আজানের ধ্বনি বেতার এবং টেলিভিশনে প্রচার করা হলো । বক্তৃতার শুরুতে উপস্থিত সবাইকে মুসলিম রীতিতে সালাম জানিয়ে সম্ভাষণ  জানালেন ।“ হাদিস শরীফ ’’ থেকে মহানবীর শান্তির বাণী উদ্ধৃত করলেন । এর আগে নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্টে অধিবেশন শুরুর আগে “ পবিত্র কোরআন ’’ থেকে তেলাওয়াত করা হয়েছে।

জেসিন্ডা আর্ডেন বলেছেন, প্রতিদিনের বাস্তবতায় সর্বোত্তম সৃষ্টিই আমাদের জন্য বড় চ্যালেন্জ। আমরা ভয়ের ভাইরাসের মাধ্যমে সংক্রমিত নই, কখনোই তা ছিলাম না। চরমপন্থার ভয়াবহতা থেকে মুক্তি দিতে বিশ্ব নেতাদের প্রতিও তিনি আহ্বান  জানিয়েছেন। তাঁর প্রশ্ন ছিল, একটি জাতিসত্তার পরিচয় কি কেবল নিজ ভৌগোলিক সীমারেখা কিংবা জাতিত্বের উপর নির্ভর করে ? নিউজিল্যান্ডেবাসীর কাছে এর যথাযথ উত্তর হচ্ছে, না। কেবল ‘‘মানবতাবোধের মাঝে ’’এর পরিচয় । উল্লেখ্য, ক্রাইস্টচার্চের সন্ত্রাসী হামলার পর সে দেশে অস্ত্র আইন কঠোর করা হয়েছে।মন্ত্রীসভায এ বিষয়ে একটি প্রস্তাবও পেশ করা হয়েছে। সন্ত্রাসী হামলায় নৃশংসতার পর জেসিন্ডা আর্ডেনের সামগ্রিক পদক্ষেপ যেন বিশ্ববাসীর সামনে সত্যিকার একজন দৃঢ়চেতা মানবতাবাদী নেতৃত্বকেই তুলে ধরেছে।

…..সম্পাদক, স্বদেশ২৪


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।