রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন জুলাই থেকেই: অর্থমন্ত্রী

ঢাকা: বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশই তাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য ভ্যাটের ওপর নির্ভরশীল। রাজস্ব অগ্রযাত্রায় যে পথে এগিয়ে যাচ্ছি তার মূল চালিকা শক্তি ভ্যাট। আগামী অর্থবছর থেকে ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে।

বিশ্বব্যাপী চলমান অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও বাংলাদেশ গত ১০ বছরে ৭ শতাংশের ওপরে প্রবৃদ্ধি অর্জনে সমর্থ হয়েছে এবং গত অর্থ বছরে ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। আমরা চলতি অর্থবছরে ৮.১১ থেকে ৮.২৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের প্রত্যাশা করছি। আমরা স্বাস্থ্য, খাদ্য, শিক্ষাসহ প্রায় সকল খাতে অগ্রগতি অর্জন করেছি। ১০ বছর পূর্বের বাংলাদেশ আর বর্তমান বাংলাদেশ অনেক তফাত রয়েছে। বাংলাদেশ এখন সারা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে রূপান্তরিত হয়েছে।

আজ সোমবার দুপুরে শেরে বাংলানগরে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে নিজ কার্যালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এ আগত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)-এর টেকনিক্যাল মিশন সাক্ষাতে আসলে, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির সাথে তাল মিলিয়ে রাজস্ব আদায়ের পরিধি ও কলেবর বৃদ্ধি এবং ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিয়ে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন এনবিআরের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

মন্ত্রী আরো বলেন, লক্ষ্য যদি বড় থাকে, লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টাও হয় বৃহৎ। সরকার সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে। আগামী ১ জুলাই থেকেই নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন করবে সরকার। আগামী জুলাইয়ে বাস্তবায়ন হতে যাওয়া ভ্যাট আইনে একাধিক স্তর থাকবে, এক্ষেত্রে সিঙ্গেল রেটের পরিবর্তে সহনীয় মাল্টিপল রেট থাকবে। এছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের ক্ষেত্রে কোনো ভ্যাট দিতে হবে না। এ আইনের আওতায় ভ্যাট আদায়ে ফাঁকি রোধে ইলেকট্রনিক ফিসকাল ডিভাইস বা ইএফডি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হবে। ইএফডি ক্রয় প্রক্রিয়া এনবিআর-এ চলমান আছে।

অর্থাৎ কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে ক্রেতা পণ্য কিনলে মূল্য ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে পরিশোধ করবে। যা থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই ভ্যাটের দৈনিক ও মাসিক হিসাব পাওয়া যাবে। এমনকি এর মাধ্যমে ব্যবসায়ীর সব বেচা-কেনার তথ্যও সংরক্ষিত থাকবে। তাই ভ্যাট ফাঁকির কোনো সুযোগ থাকবে না। এছাড়া এই ভ্যাট আদায়ে ফাঁকি রোধে ইলেকট্রনিক ফিসকাল ডিভাইস ব্যবহারের জন্য এনবিআরে যে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে তাতেকরে একটি বড় কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে।

আইএমএফ মিশন প্রধান মি. অ্যাকসেল সোরেনসেন, সিনিয়র অর্থনীতিবিদ (এফইডি), মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বলেন, তারা এনবিআর-এর রাজস্ব খাত সংস্কারে অটোমেশনের জন্য প্রয়োজনীয সুপারিশ করবে। মিশনের কার্যপরিধির মধ্যে রয়েছে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ কর ব্যবহার উন্নয়নে করনীয় খুঁজে বের করা এবং তা এনবিআর ও অর্থমন্ত্রণালয়ে-কে অবগত করা। তারা অর্থমন্ত্রীর রাজস্ব খাত সংস্কারের উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং এ লক্ষ্যে আইএমএফ একযোগে এনবিআর-এর সাথে কাজ করবে বলে জানায়।


পোস্ট টি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

স্পন্সরড নিউজ

সম্পাদক:
আসিফ সিরাজ

প্রকাশক:
এইচ এম শাহীন
চট্টগ্রাম অফিসঃ
এম বি কমপ্লেক্স (৩য় তলা), ৯০ হাই লেভেল রোড, ওয়াসা মোড়, চট্টগ্রাম।

যোগাযোগঃ
বার্তা কক্ষঃ ০১৮১৫৫২৩০২৫
মেইলঃ news.shodesh24@gmail.com
বিজ্ঞাপনঃ ০১৭২৪৯৮৮৩৯৯
মেইলঃ ads.shodesh24@gmail.com
কপিরাইট © ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্বদেশ২৪.কম
সেল্ফটেক গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান।